এবারের সেঞ্চুরিটা মায়ের জন্য

0
113
সেঞ্চুরির পর তাঁর এই উদ্‌যাপনটা নিয়মিতই দেখা যায়। স্ত্রী-সন্তানের উদ্দেশে আজও একই উদযাপন করেছেন। তবে মাহমুদউল্লাহ ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সেঞ্চুরিটা উৎসর্গ করেছেন তাঁর মাকে।

সেঞ্চুরি করলেই এই উদযাপনটা করতে দেখা যায় মাহমুদউল্লাহকে। হেলমেট রেখে, ব্যাট-গ্লাভস খুলে উড়ন্ত চুমু দেন। দুই হাতে ‘হৃদয়’ চিহ্ন আঁকেন। আজও ব্যতিক্রম হয়নি। মিরপুর টেস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সেঞ্চুরির পর মাহমুদউল্লাহ উড়ন্ত চুমু ও হৃদয় চিহ্ন দেখিয়েছেন। দুটিই স্ত্রী-সন্তানের উদ্দেশে। তবে এই সেঞ্চুরিটা তিনি উৎসর্গ করছেন মাকে।খবর যুগান্তরের।

বিদেশে খেলতে গেলে মাহমুদউল্লাহর ভীষণ ‘হোম সিকনেস’ বা গৃহকাতরতা কাজ করে। বেশির ভাগ সময়ে তাই স্ত্রী-সন্তানকে সঙ্গে নিয়ে যান। এটি তাঁকে মানসিকভাবে অনেক স্বচ্ছন্দ এনে দেয়। ভালো খেলতে সুবিধা হয়। পরিবার সঙ্গে থাকলেও মায়ের কথা তিনি এক মুহূর্ত ভুলতে পারেন না। ভোলা যায়ও না। ক্রিকেট নিয়ে ভীষণ ব্যস্ততা থাকার পরও নিয়মিত কথা বলেন মায়ের সঙ্গে। তবুও মায়ের জন্য মাহমুদউল্লাহর মন কাঁদে।

২০১৫ বিশ্বকাপ ইংল্যান্ডের বিপক্ষে যে ম্যাচে দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি করেন, সেদিন ম্যাচের আগে জাতীয় সংগীত গাওয়ার সময় বারবার মায়ের কথা মনে পড়ছিল আর চোখ ভিজে উঠছিল তাঁর। আবেগঘন সেই মুহূর্তের কথা মনে করে বিশ্বকাপের পর বলেছিলেন, ‘এমনিতে জাতীয় সংগীত গাওয়ার সময় আলাদা একধরনের অনুভূতি কাজ করে মনে। বিশেষ করে, “মা তোর বদনখানি মলিন হলে আমি নয়ন জলে ভাসি…” ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এ দুটো লাইন গাওয়ার সময় মায়ের কথা খুব মনে পড়েছিল। চোখ দুটো ভিজে এসেছিল। চোখের সামনে মায়ের চেহারাটা ভেসে উঠেছিল। মায়ের দোয়া সঙ্গে ছিল বলেই হয়তো সেদিন ম্যাচের ফলটা আমাদের পক্ষে এসেছিল।’

ওই ম্যাচ জেতার পর বাংলাদেশের সামনে খুলে গিয়েছিল স্বপ্নের দুয়ার, প্রথমবারের মতো উঠেছিল কোয়ার্টার ফাইনালে। ইংল্যান্ড-ম্যাচের পর মাহমুদউল্লাহর ব্যাটে আরও তিনটি সেঞ্চুরি এসেছে। আজ যোগ হলো আরেকটি। আগে কখনো উৎসর্গ করা হয়নি ভেবে কি না এই সেঞ্চুরিটি মা আরাফাত বেগমকে উৎসর্গ করলেন মাহমুদউল্লাহ, ‘সেঞ্চুরিটা আমার আম্মুকে উৎসর্গ করতে চাই। বাবা-মা আমার জন্য অনেক দোয়া করেন। সবার বাবা-মা, তা-ই করেন। আমার মনে হয় এ কারণে তাঁদের এটা পাওনা।’

মাহমুদউল্লাহর কাছেও পাওনা আরও অনেক সেঞ্চুরি!

LEAVE A REPLY